• আজ ৪ঠা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কোনো ইস্যু নিয়েই আলোচনা নয়, মোদি আসছেন তাতেই আমরা খুশি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

| ডেস্ক এডিটর ১০:৫৩ পূর্বাহ্ণ | মার্চ ১৩, ২০২১ রাজনীতি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, ‘তিনি (ভারতের প্রধানমন্ত্রী) আসছেন তাতেই আমরা খুশি। নরেন্দ্র মোদির সফর পুরোটাই হবে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর উৎসব উদযাপনের। আমাদের সঙ্গে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের জন্য আসছেন, এটাই বড় পাওয়া। আর কী চাই?’

শুক্রবার (১২ মার্চ) রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সবচেয়ে খুশি, উনি আসছেন। তবে যদি আমাকে জিজ্ঞেস করেন সফরে কোনো ধরনের সমঝোতা স্মারক সই হবে কি না, তবে আমি বলব অপ্রাসঙ্গিক।’

মোদির সফরে তিস্তা নিয়ে আলোচনা হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ওগুলো বাদ। আমরা যেটা চাই সেটা হচ্ছে, এই যে একটি আনন্দ উৎসব, আমাদের এই বড় উৎসবে সবাই এসেছে, আমরা তাতেই আনন্দিত। এটাই তো আমাদের বড় পাওয়া, আর কী চান আপনি?’

‘আপনাকে কে কাপড় দিল, ভাত দিল ওইটা নিয়ে বেশি চিন্তিত না, ওগুলো আমরা ম্যানেজ করব। তিস্তা চুক্তি বাস্তবায়ন হয়নি তাদের সমস্যা আছে। আমরা বুঝি, আমরা বোকা নই। আপনিও জানেন কেন হচ্ছে না। আপনিও বোকা নন, তাই এগুলো নিয়ে খামোখা প্রশ্ন করছেন কেন?’

এবারের সফরে নরেন্দ্র মোদীর কী কী কর্মসূচি থাকছে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনাকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রথম বিদেশ সফর বাংলাদেশ। অন্যান্য দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা বাংলাদেশে এসে শুধু ঢাকায় থাকেন। কিন্তু নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে যাবেন। ২৬ মার্চ তার ঢাকা আসার কথা রয়েছে।

পরদিন তার সাতক্ষীরার যশোরেশ্বরী মন্দির, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ এবং কাশিয়ানী উপজেলার ওড়াকান্দিতে মতুয়া সম্প্রদায়ের একটি মন্দিরে যাওয়ার কথা রয়েছে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে ড. মোমেন বলেন, করোনাকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রথম বিদেশ সফর বাংলাদেশ। উনি কোথাও যান নাই, এই কোভিডের পর কোথাও যাননি, প্রথম বিদেশ সফরে তিনি ঢাকায় আসতেছেন। সব সময় রাষ্ট্রপ্রধান, সরকার প্রধান ঢাকায় এসেই শেষ।

উনি আমাদের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও যাবেন। সাতক্ষীরায় যাবেন, গোপালগঞ্জ যাবেন, ওড়াকান্দিতে যাবেন- চিন্তা করেন! আমাদের সবচেয়ে বড় প্রতিবেশী পৃথিবীর বড় গণতান্ত্রিক দেশ, তার সরকারপ্রধান এইসব জায়গায় ঘুরে বেড়াবেন। আমাদের জন্য এটা বিরাট আনন্দের। এরপরে কি চান আপনারা?

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপনে গতবছর ১৭ মার্চ জাতীয় পর্যায়ে বড় আকারে অনুষ্ঠান হওয়ার কথা ছিল। সে অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীরও যোগ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে সব স্থগিত হয়ে যায়।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে এ মাসের ১৭ থেকে ২৬ মার্চ দশ দিন জাতীয় পর্যায়ে বেশ কিছু অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তাতে যোগ দিতে ২৬ মার্চ ঢাকা আসার কথা রয়েছে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর।

এসএস/জেটএম


করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন সময়ের সংবাদে । আজই পাঠিয়ে দিন Smersngbd.com@gmail.com মেইলে - Smersngbd.com@gmail.com