• আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মন্দিরের ভূমিপূজায় ঢালা হল ১১,০০০ লিটার দুধ, ১৫০০ লিটার দই, ১ কুইন্টাল ঘি

| Abdul Ahad Al Junayet ৯:১৯ পূর্বাহ্ণ | ডিসেম্বর ২৯, ২০২০ আন্তর্জাতিক

মন্দিরের কাতারে কাতারে লোক জড়ো হয়ে একটি বিশাল গর্তে বালতির পর বালতি দুধ ,দই ও ঘি ঢেলে চলেছে। গর্তে ভাসছে প্রায় ১১ হাজার লিটার দুধ ও ঘি দেয়া হয়েছে যার বাজারে মূল্য প্রায় ১ লক্ষ টাকার উপরে। যদিও তা অকারণে নয়, ভারতের রাতলাই নামক এলাকায় স্থাপিত হতে চলেছে এক বিশাল দেবনারায়ণ মন্দির যার ভূমিপুজো উপলক্ষেই এই বিশাল পরিমাপের নৈবেদ্যের আয়োজন। খবর জিনিউজ

জি নিউজ সংবাদকে মন্দিরের এক কর্তৃপক্ষ রামলাল গুজ্জর জানান তাঁরা ১১০০০ লিটার দুধ, দই ও ঘি জোগাড় করেছেন গুজ্জর সম্প্রদায়ের মানুষদের কাছ থেকে।

এছাড়া অন্য সম্প্রদায়ের মানুষেরাও এগিয়ে এসেছেন এই নৈবেদ্য সংগ্রহের কাজে। ১১০০০ লিটার পরিমাপের এই বিশাল নৈবেদ্যের মধ্যে ছিল ১৫০০ লিটার দই, প্রায় ১ কুইন্টাল দেশি ঘি আর বাকি পুরোটাই ছিল খাঁটি দুধ যার বাজারমূল্য প্রায় ১.৫ লক্ষ টাকা।

তিনি আরও জানান, যে সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে এই উৎসব উপলক্ষে তাঁরা সাহায্যের আবেদন করেছিলেন; তাঁরা আগ্রহ ও ভক্তির সাথেই এই উৎসবে এগিয়ে এসেছেন।

দেবতার পুজো উপলক্ষে এই বিশাল আয়োজন ঠিক কতটা যুক্তিযুক্ত তা বড়ই বিতর্কের বিষয়। আর এই বিষয় নিয়ে প্রশ্নের উদ্রেক হলেই যে তার উত্তর মিলবে তা আশা করা বৃথা। আর উত্তর এলেও তা আসবে হোয়াট‍অ্যাবাউটিজমের কঠিন মোড়কে।

এই উৎসবের প্রয়োজনীয়তার প্রসঙ্গে রামলাল গুজ্জর বলেন, এই উৎসব একেবারেই বাধ্যতামূলক নয় তবে অতীতে এমন উৎসবের দৃষ্টান্ত রয়েছে বলা চলে কিন্তু দেবতার দানশীলতার কাছে এই নৈবেদ্য কিছুই নয়। এছাড়া তিনি আরও বলেন এই দেবতার উদ্দেশ্যে এই দান কখনই অপচয় হতে পারে না।

গুজ্জর সম্প্রদায়ের মানুষেরা নিজেদের গৃহপালিতদের রক্ষার্থে এই দান করেছেন কারন ভগবান দেবনারায়ণ সর্বদাই তাদের গৃহপালিত গবাদি পশুদের রক্ষা করেন। কাজেই এই দান অপচয় নয়। মন্দিরটির নির্মাণ আগামী ২০২২ সালে সম্পন্ন হবে আর এই মন্দির নির্মাণে খরচ হবে প্রায় ১ কোটি টাকা।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন সময়ের সংবাদে । আজই পাঠিয়ে দিন Smersngbd.com@gmail.com মেইলে - Smersngbd.com@gmail.com