• আজ ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি পণ্যে কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্স বাতিল

| ডেস্ক এডিটর ৩:০৬ অপরাহ্ণ | নভেম্বর ১৭, ২০২০ জাতীয়

গতকাল সোমবার আবারো মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত একটি পণ্যের চালান আটক করেছে বেনাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।এ পণ্য চালানে কটন ফ্যাব্রিক্সের ঘোষণায় শাড়ি থ্রি-পিস,ওষুধ ও প্রসাধনসামগ্রী আমদানি করা হয়েছে।

গত এক সপ্তাহে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত আরো তিনটি পণ্যের চালান আটক করা হয়েছে। বাতিল করা হয়েছে কয়েকটি সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্স।

এসব পণ্য চালানে বিপুল রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হচ্ছিল।
বেনাপোল কাস্টমসের সহকারী কমিশনার অনুপম চাকমা জানান,রাফা এন্টারপ্রাইজ নামে ঢাকাস্থ একটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান কটন ফ্যাব্রিকস ঘোষণা দিয়ে বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে পণ্য আমদানি করে। যার মেনিফেস্ট নম্বর ২৬৮৩২/২, তারিখ, ০৫/১১/২০২০।

পণ্য চালানটি বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের পর বন্দরের ৩৬ নম্বর গুদামে রাখা হয়।পণ্য চালানটি বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের পর এশিয়া এন্টারপ্রাইজের নামে এক সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টের বর্ডারম্যান পণ্যগুলো গ্রহণ করেন।

গোপন সংবাদ আমলে নিয়ে পণ্য চালানটি পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় পণ্য চালানে ঘোষণা বহির্ভূত পণ্য পাওয়া যায়।কমিটি করে পণ্যচালানটি পরীক্ষা করা হয়। দেখা যায় কটন ফ্যাব্রিকস ঘোষণা দেয়া হয়েছে। কিন্তু সেখানে মাত্র ৬ প্যাকেট কটন ফ্যাব্রিকস পাওয়া যায়।

বাকি সব প্যাকেজে ভারতীয় কাতান শাড়ি, থ্রি-পিস, আমদানি নিষিদ্ধ ওষুধ,ব্যথানাশক মুভ ও সানশাইন ক্রিম যায় পাওয়া যায়।মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে পণ্য আমদানি করায় পণ্যচালানটি আটক করা হয়।চালানে কয়েক লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হচ্ছিল।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান জানান,রাজস্ব ফাঁকিবাজ একটি চক্র বেনাপোল বন্দরকে ধ্বংস করার জন্য এ ধরনের অবৈধ কাজ করার চেষ্টা করছে।

তবে বেনাপোল কাস্টমস হাউজে জিরো টলারেন্স নীতি গৃহীত করায় সেই সুযোগ তারা পাবে না।আমরা নিজেরা যারা স্বচ্ছতার সাথে ব্যবসা করার চেষ্টা করছি তারা এসব রাজস্ব ফাঁকিবাজদের কারণে বিভিন্ন সময় নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছি।

এজন্য আমরা যারা বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসা করি তারা সকলে মিলে এসব রাজস্ব ফাঁকিবাজকে প্রতিহত করার চেষ্টা করছি।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার আজিজুর রহমান জানান,বেনাপোল বন্দরে কিছু রাজস্ব ফাঁকিবাজ মাথাচাড়া দিয়ে ওঠার চেষ্টা করছে।যতই চেষ্টা করুক না কেন তাদের প্রতিহত করা হবে।

ট্রেড ফেসিলিটি সংক্রান্ত বিষয়ে সহযোগিতা করা হবে; তবে মিথ্যা ঘোষণায় বা অবৈধভাবে কেউ কোনো পণ্য আমদানি করলে তা নির্মূল করা হবে।

গত এক সপ্তাহে বেনাপোল বন্দর দিয়ে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত চারটি পণ্য চালান আটক করা হয়েছে। এসব পণ্য চালানে প্রায় ১ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হচ্ছিল বলে তিনি জানান।

তিনি আরো বলেন,বেনাপোল বন্দর দিয়ে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা পণ্য কাস্টমস থেকে ছাড় করণে সহযোগিতা করার অপরাধে গত এক সপ্তাহে কয়েকটি সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্স বাতিল করাসহ জরিমানা আদায় করা হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস হাউজে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করা মিথ্যা ঘোষণায় আমদানি করা পণ্যচালান গুলি আটক হচ্ছে।প্রয়োজনে এসব ব্যবসায়ীদের কালো তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে হাউজের ভেতরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

প্রসঙ্গত গত এক সপ্তাহে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত আরো তিনটি পণ্যচালান আটক করেছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ।

, , ,

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন সময়ের সংবাদে । আজই পাঠিয়ে দিন Smersngbd.com@gmail.com মেইলে - Smersngbd.com@gmail.com